রাজনীতি

মণিপুরে জ্বলছে আগুন ৮ জেলায় জারি হল ১৪৪ ধারা মারা গেছে ৫৪ জন

মনিপুর রাজ্য! আদিবাসী এবং অ-আদিবাসী গ্রুপগুলোর মধ্যে সহিংসতার জের ধরে উত্তপ্ত ভারতের মনিপুর রাজ্য। আন্দোলনকারীদের দেখামাত্র গুলি করার নির্দেশ দিলেন মনিপুর জেলা প্রশাসন। আন্দোলন থামাতে দফায় দফায় হচ্ছে সকল সংগঠনের মিটিং আন্দোলনকারীদের নিয়ন্ত্রণে রাখতে রাস্তায় রাস্তায় টহল দিচ্ছে সেনাদল। পরিস্থিতি এতটাই নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে যে ৮ জেলায় জারি করা হয়েছে ১৪৪ ধারা এমন কি আন্দোলনকারীদের দেখামাত্রই গুলি করার নির্দেশ রয়েছে।

মনিপুর রাজ্য

মেতাই সম্প্রদায়

ভারতের মনিপুর রাজ্যের এই সংঘর্ষ মুলত মেতাই সম্প্রদায় কে নিয়ে। মণিপুর রাজ্যে মেতাই সম্প্রদায় রয়েছে মোট জনসংখ্যার ৫৩ শতাংশ। এই সম্প্রদায়ের বেশিরভাগ সংগঠন  অনেকদিন ধরে তাদেরকে আদিবাসীর আওতাভুক্ত করার জন্য সরকারের কাছে অনুরোধ জানিয়ে আসছিল। গত ১৯ এপ্রিল মণিপুরের হাইকোর্ট তাদের এসটি তালিকাভুক্ত করার বিষয়টি চিন্তাভাবনা করার নির্দেশ দেয় মনিপুর রাজ্য সরকারকে। আর এর পরই আন্দোলনের মূল সূত্রপাত ঘটে। সেখানকার মেতাই সম্প্রদায়ের যুবকরা রাস্তায় নামে ভাঙচুর করে গাড়ি রাস্তা অবরোধ করে শুরু করে আন্দোলন। সঙ্গে সঙ্গে অন্য সম্প্রদায়ের গোষ্ঠীগুলো মেতাই সম্প্রদায়ের এই আন্দোলনকে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করলে শুরু হয় তুমুল সংঘর্ষ ।

সর্বশেষ খবর পাওয়া প্রজন্ত ৫৪ জনের মৃত্যু হয়েছে আহত হয়েছে অনেকেই। পরিস্থিতি সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে বিজেপি সরকার। রাজ্যজুড়ে ৫৫ কলাম সৈন্য মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়াও পাঁচ কোম্পানি র‍্যাফ উড়িয়ে আনা হয়েছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য। ৮ জেলায় জারি করা হয়েছে কারফিউ। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যেন কোন প্রকার গুজব না ছড়ায়  সেজন্য বন্ধ করে  করে দেওয়া হয়েছে ইন্টারনেট।

মেতাই সম্প্রদায় অনেকদিন ধরে নিজেদেরকে  তফসিলি উপজাতি হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার দাবি জানিয়ে আসছিল। কেননা এ ঘোষণার মাধ্যমে তারা সরকারি কোটার আওতা ভুক্ত হত। এতে করে তারা পাহাড়ি এলাকাগুলতে বসতি করা ছাড়াও পাহাড়ে বিভিন্ন ফসলের চাষাবাদ সহ সরকারি সকল সুজক সুবিধা পেত। এতে করে অন্য উপজাতিরা ক্ষতিগ্রস্ত হতো। কেননা মেতাই সম্প্রদায়ের জীবন যাত্রার মান অন্য উপজাতি সম্প্রদায়ের তুলনায় অনেক ভাল।

মনিপুর রাজ্যের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য রাহুল গান্ধী বিজেপি সরকারকে অনুরধ জানিয়েছে। কেননা সেখানকার এ ভয়াভয় অবস্থা আরো বেগবান হলে প্রাণহানির সংখ্যা বারতে পারে।

১৪ ই মে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন এ সম্পর্কে জানতে চাইলে আমাদের পেজের সঙ্গেই থাকুন

বন্ধরা আশা করি পোস্টটি আপনাদের ভালো লেগেছে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে আপডেট নিউজ পেতে আমাদের পেজতি ফলো করুন।

Related Articles

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।