Uncategorized

ব্রণ দূর করার বিশ্বসেরা ৮টি ফেসওয়াশ জেনে নিন বিস্তারিত

মেয়েদের ব্রণ দূর করার ফেসওয়াশ! যখন ছেলে মেয়েরা বয়সন্ধিকালে পদার্পণ করে তখন তাদের মুখে একটি কমন সমস্যা দেখা যায়। আর তা হলো ব্রণ। এই ব্রণ সমস্যা মুখের সৌন্দর্যকে নষ্ট করে এবং মুখের উজ্জ্বলতাকে অনুউজ্জ্বল করে তোলে। পাশাপাশি মুখের মধ্যে গর্তের সৃষ্টি হয়। ফলে মুখে কালো দাগ পড়ে যায়।

মেয়েদের ব্রণ দূর করার ফেসওয়াশ

এই সমস্যা থেকে উত্তরণের জন্য ছেলেমেয়েরা বিভিন্ন ধরনের ফেসওয়াশ ব্যবহার করে থাকে। অনেকে জেনে এবং না জেনে এসব ফেসওয়াশ ব্যবহার করে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দেখা গেছে যারা না জেনে বিভিন্ন ধরনের ফেসওয়াশ ব্যবহার করছে তাদের মুখে ব্রণ সমস্যার দূর না হয়ে বরং মুখের সৌন্দর্যকে আরো নষ্ট করেছে। এজন্য আমরা আজকের এই পোস্টের মাধ্যমে আপনাদেরকে জানাবো ব্রণের জন্য আপনি কোন ফেসওয়াশটি ব্যবহার করলে সবচেয়ে ভালো ফলাফল পাবেন সে সম্পর্কে। চলুন তাহলে আর দেরি নয় শুরু করা যাক আজকের পোস্টটি।

ব্রণের জন্য কোন ফেসওয়াস ভালো

মুখের ব্রণ দূর করার জন্য বাজারে কয়েকশো ধরনের ফেসওয়াশ পাওয়া যায়। যেগুলোর মধ্যে কিছু সংখ্যক ভালো ফেসওয়াশ রয়েছে। আর এগুল ব্রণ সমস্যা দূর করার জন্য অত্যন্ত কার্যকারী ভূমিকা পালন করে থাকে। আবার অনেক অসাধু ব্যবসায়ী রয়েছে যারা বিভিন্ন ব্র্যান্ডের নাম ব্যবহার করে অসৎ উপায়ে কেমিক্যাল দিয়ে ব্রণের ফেসওয়াশ বিক্রি করছে। আর এসব ফেসওয়াশ ব্যবহার করার ফলে ব্রণ সমস্যার দূর না করে বরঞ্চ মুখের সৌন্দর্য আরো নষ্ট করছে। আপনি যদি ব্রণ সমস্যা থেকে সমাধান পেতে চান তাহলে নিচে উল্লেখ করা ফেসওয়াশ গুলো ব্যবহার করতে পারেন। কেননা এই ফেসওয়াশগুলো বিভিন্ন পরীক্ষাগারে পরীক্ষার মাধ্যমে মার্কেটে লঞ্চ করা হয়েছে এবং অনেক কোম্পানির কাছে এসব ফেসওয়াশের লাইসেন্স রয়েছে।

  • Dermalogica Breakout Clearing Foaming Wash – ডার্মালোজিকা ব্রেকআউট ক্লিয়ারিং ফোমিং ওয়াশ,
  • Simple Daily Skin Detox Purifying Facial Wash – সিম্পল ডেইলি স্কিন ডিটক্স পিউরিফাইং ফেসিয়াল ওয়াশ ,
  • POND’S BRIGHT BEAUTY Vitamin B3 Face Wash – পুকুরের উজ্জ্বল সৌন্দর্য ভিটামিন বি 3 ফেস ওয়াশ,
  • Pears Ultra Mild Face Wash In Oil Clear Glow – পিয়ার্স আলট্রা মাইল্ড ফেসওয়াশ ইন অয়েল ক্লিয়ার গ্লো,
  • Lakmé Blush & Glow Kiwi Crush Gel Face Wash – ল্যাকমি ব্লাশ অ্যান্ড গ্লো কিউয়ি ক্রাশ জেল ফেসওয়াশ ,
  • Himalaya Fresh Start Oil Clear Face Wash – হিমালয় ফ্রেশ স্টার্ট অয়েল ক্লিয়ার ফেস ওয়াশ
  • Pond’s Pimple Clear Face Wash – পন্ড’স পিম্পল ক্লিয়ার ফেসওয়াশ ,
  • Oil Free Acne Wash – তেল মুক্ত ব্রণ ধোয়া

কত বছর বয়সে ব্রণ হয়ে থাকে

মেয়েদের ব্রণ দূর করার ফেসওয়াশ – ব্রণ একটি গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা। কেননা এটি মুখের সৌন্দর্যকে নষ্ট করে দেয়। সাধারণত মেয়ে এবং ছেলেরা যখন বয়ঃসন্ধিকালে পদার্পণ করে তখন ব্রণ সমস্যা বেশি দেখা দেয়। আর এটির একমাত্র কারণ দেহে হরমোন জনিত বিভিন্ন শারীরিক পরিবর্তন। এক্ষেত্রে মেয়েদের ১৪ থেকে ১৫ বছর বয়সে এবং ছেলেদের ১৬ থেকে ২০ বছর বয়সে ব্রনের সমস্যা দেখা দেয়। আবার কোন কোন ক্ষেত্রে দেখা গেছে ৩০ থেকে ৪০ বছর বয়স পর্যন্ত ব্রণ সমস্যা হয়ে থাকে। অর্থাৎ বলা যায় ব্রনের জন্য কোন নির্দিষ্ট  বয়সসীমা থাকে না। এটি একটি দীর্ঘমেয়াদী সমস্যা।

মুখে ব্রণ হওয়ার কারণ

মুখে বিভিন্ন কারণে ব্রণ হয়ে থাকে। তবে বর্তমানে মুখে ব্রণ হওয়ার একটি বড় সমস্যা হচ্ছে, না বুঝে বিভিন্ন ধরনের প্রোডাক্ট ব্যবহার করা। নিচে যেসব কারণে মুখে ব্রণ হয়ে থাকে তার কিছু উদাহরণ দেওয়া হল।

  • বংশগত কারণে মুখের মধ্যে ব্রণ হতে পারে
  • অতিরিক্ত পরিমাণে রাত জাগলে মুখে ব্রণ হয়ে থাকে। এক্ষেত্রে খুব সকাল সকাল ঘুমাতে হবে।
  • প্রোডাক্টের ধরন না বুঝে মুখের মধ্যে ব্যবহার করলে ব্রণ হওয়ার প্রবণতা বেড়ে যায়।
  • বদহজমের কারণে ব্রণ হয়ে থাকে ।
  • বয়সন্ধিকাল এবং গর্ভাবস্থায় মুখের মধ্যে ব্রণ হয়। এটির একমাত্র কারণ হরমোন জনিত পরিবর্তন।

ফেসওয়াশ কত বছর বয়সে ব্যবহার করা উচিত

বন্ধুরা আমরা কেন ফেসওয়াশ ব্যবহার করি। ফেসওয়াশ ব্যবহার করার একমাত্র কারণ হলো আমাদের মুখে থাকা কালো দাগগুলো এবং বিভিন্ন ধরনের স্পটগুলো দূর করার জন্য, পাশাপাশি ত্বককে আরো উজ্জ্বল ও লাবণ্যময় করার জন্য ফেসওয়াশ ব্যবহার করে থাকি। কিন্তু এই ত্বকের জন্য ফেসওয়াশ ব্যবহার করার একটি নির্দিষ্ট বয়স রয়েছে। কারণ ফেসওয়াশ গুলো বিভিন্ন ধরনের কেমিক্যাল দ্বারা তৈরি করা হয়। তাই অল্প বয়সে ফেসওয়াশ ব্যবহার করলে মুখের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের চর্ম জনিত রোগের আবির্ভাব ঘটতে পারে। যা ত্বকের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। তাই অল্প বয়সে ফেসওয়াশ ব্যবহার না করাই ভালো। কারণ এই সময়টাতে শরীরের ত্বক অত্যন্ত সফট থাকে।

আপনি যদি ১৫ থেকে ১৬ বছর বয়সের মধ্যে হয়ে থাকেন তাহলে চাইলেই ফেসওয়াশ ব্যবহার করতে পারেন। কারণ এই সময়টাতেই ছেলে মেয়েদের মুখে ব্রণ দেখা দেয়। আপনি যদি এই সময়টাতে ফেসওয়াশ ব্যবহার করা শুরু করেন তাহলে ব্রণের হাত থেকে রক্ষা পেতে পারেন। তবে এক্ষেত্রে মনে রাখবেন অবশ্যই বাজারের সবচেয়ে ভালো মানের ফেসওয়াশটি ব্যবহার করবেন।

পরিশেষে

বন্ধুরা আপনারা ইতিমধ্যেই জেনে গেছেন ব্রনের জন্য কোন ফেসওয়াশটি ভালো সে সম্পর্কে। তবে এক্ষেত্রে একটি বিষয় মনে রাখবেন আপনার ত্বকের সঙ্গে একজাস্ট হয় এরকম ফেসওয়াশ ব্যবহার করবেন। এতে করে আপনার ত্বকের মধ্যে কোন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা যাবে না।

আশা করি বিষয়টি বুঝতে পেরেছেন। বন্ধুরা এই পোস্টটি যদি আপনাদের কাছে এতোটুকু ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই আপনাদের অন্যান্য বন্ধুদের মাঝে পোস্টটি শেয়ার করে দিন এবং লাইভস্টাইলের কোনো বিষয় সম্পর্কে আপনার জানার আগ্রহ থাকলে আমাদের কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করে জানিয়ে দিন আমরা যথা সময়ে আপনার প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।